Home / রাজনীতি / মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর প্রতি সাবেক ছাত্রলীগ নেতার খোলা চিঠি

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর প্রতি সাবেক ছাত্রলীগ নেতার খোলা চিঠি

খোলা চিঠি : ২৩ মার্চ, ২০১৯

মাননীয় মন্ত্রী মহাদয় জনাব আ.ক.ম মোজাম্মেল হক।

পরিবহন পুল ভবন (৭ম ও ৮ম তলা) সচিবলায় সংযোগ সড়ক ঢাকা-১০০০।

বিষয় :নির্বাচনী প্রচারণা এবং দলীয় সিদ্ধান্ত।

মাননীয় মন্ত্রী, আমাদের আছে মহান মুক্তিযুদ্ধের গৌরবউজ্জ্বল ইতিহাস, যে ইতিহাসের একমাত্র রচিয়তা পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সেই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সরকারের গুরুত্বপূর্র্ণ মন্ত্রণালয়ের প্ৰভাৱশালী মন্ত্রী আপনি, মন্ত্রণালয়কে আধুনিকরণে আপনার ভূমিকা প্রশংসনীয়।

প্রসঙ্গত আপনি নৌকার বিরুদ্ধে প্রচারণা চালিয়ে আপনার আকাশ চুম্মি মর্যাদাকে কেন কলুষিত করছেন সবিনয়ে জানতে চাই। এবং আপনার উদ্দেশ্যকে পরিষ্কার করবেন, আপনি যদি বলেন আপনি আপনাকে মুশতাক মনে করি কি না ?
উওর : যে জাতি তার পিতাকে হত্যা করতে পারে ,তাকে বিশ্বাস করা কি সমুচিত ? প্রশ্ন রইল।

অসভ্য ,বেঈমান কি নাম দিন মাননীয় মন্ত্রী মহাদয় ? নৌকার নির্বাচনী প্রচারণায় কতগুলো তাজা প্রাণ তাদের রক্ত দিল , এই তো সেদিন, নিঃস্ব হলো কতগুলি পরিবার, মা হারালো তার একমাত্র উপাৰ্জনক্ষম সন্তানকে, সদ্য বিবাহিত স্ত্রী হারালো তার স্বামীকে, সন্তান হারালো তার পিতাকে , ৭ বছরের সন্তান যখন তার মাকে প্রশ্নের উপর প্রশ্ন তুলে “মা বাবা কখন আসবে ?

“মায়ের চাপা কণ্ঠে উত্তর ,”তোর বাবা বিদেশ গেছে, কিছু দিনের মধ্যেই ফিরে আসবে “যেদিন সন্তান বড় হবে মা হয়ত গর্ব করে বলবে ,,তোর দাদার মতোই তোর বাবা শহীদ হয়েছে নৌকার জন্য,শেখ মুজিবের জন্য ,শেখ হাসিনার জন্য। সেই গর্বটা কেন প্রশ্নবিদ্ধ করলেন ,কেন কোমলমতি শিশুর গর্ব নিয়ে তামাশা করলেন মাননীয় মন্ত্রী জনাব আ.ক.ম মোজাম্মেল হক।

বিনীত
মোঃ আফজাল হোসেন জয়
সাবেক সদস্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পর যে মন্ত্রী সবথেকে শ্রদ্ধার সেটা হলো মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় এর মন্ত্রী পদ। এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী,সব মন্ত্রণালয়ের দ্বিতীয় প্রধান মন্ত্রী৷ সেই মন্ত্রী নিজেই যখন নৌকার বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন তাহলে নৌকার পক্ষে থাকার র দ্বায় কে নিবে? দেশের সবাই ত এখন নৌকার বিরুদ্ধে প্রচারণায় জায়েজী পেয়ে গেল।একজন নৌকার সমর্থক হয়ে একটাই দাবী অনতিবিলম্বে আগামী পরশু মন্ত্রীপরিষদ এর মিটিং হবার আগেই এই মন্ত্রীকে অব্যহতি দেওয়া উচিত। না হলে এই দোষে কাউকে দোষী করাটা আগামীদিনে হবে লজ্জার।

Posted by Kamruzzaman Khan on Saturday, March 23, 2019



আপনার মতামত লিখুন

আপনার ‘ই-মেইল’ ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, কিন্তু স্টার চিহিৃত ঘরগুলো পূরণ করতেই হবেতেই হবে *

*