Home / জাতীয় / মাদকে ভাসছে রাজধানীর মিরপুর

মাদকে ভাসছে রাজধানীর মিরপুর

রাজু আহমেদ,ষ্টাফ রিপোর্টার

মাদকের জোয়াড়ে রাজধানীর গোটা মিরপুর। সরকার ও আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর চলমান ঘোর মাদক বিরোধী অভিযানকে তোয়াক্কা না করে প্রকাশ্যেই নানা রকম মরনঘাতি মাদকের রমরমা বানিজ্য চালিয়ে আসছে মিরপরের কিছু চিহ্নিত ও সংঘবদ্ধ মাদক কারবারীরা।

বিশেষ করে ডিএমপির মিরপুর বিভাগের শাহ আলী থানা এলাকার নিউ-সি ব্লকের ৭ নম্বর রোডের ৯ নম্বর বাড়ির মালিক ফজল মিস্ত্রীর ছেলে, একাধিক মামলার আসামী, চিহ্নিত ও দূর্ধর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রাসেলের (কাউন্টার রাসেল) অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। রামপুরা এলাকার দূর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও কুখ্যাত মাদক সম্রাট সাগর রাসেলকে পাইকারী ইয়াবা সর্ববরাহ করে বলে জানা গেছে।

মাদক ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ নিউ-ব্লক এলাকাবাসী উদ্ধুদ্ধ এ যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেতে শাহ্ আলী থানার অফিসার ইনচার্জ ও স্থানী ঢাকা-১৪ আসনের সাংসদ আসলামুল হল আসলামের বরাবর একটি লিখিত অভিযোগও করেছেন। সম্প্রতি মিরপুরে মাদকের ছড়াছড়ির বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে রাসেলকে জড়িয়ে সংবাদ পরিবেশন করা হলে রুবেল নামে স্থানীয় একটি পত্রিকার সাংবাদিককে নানাভাবে হুমকী প্রদান করে আসছে কাউন্টার রাসেল।

এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগ ও তাদের ভাষ্যমতে, সমগ্র মিরপুরে পাইকারী ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি ও কুখ্যাতি রয়েছে মাদক সম্রাট কাউন্টার রাসেলের। স্বঘোষিত মাদক সম্রাট কাউন্টার রাসেলের এই বিশাল মাদক সম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রনে নিজের ভাই রাজীবসহ ২০/২৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ সিন্ডিকেট সক্রিয়ভাবে নিয়োজিত রয়েছে।

তাদের মধ্যে বাবু (হাতি বাবু), মিরপুরের একজন প্রভাবশালী আ’লীগ নেতার ভাতিজা পরিচয়ে অনিক, মাদক সম্রাজ্য নিয়ন্ত্রনে রাসেলের ডান হাত সবুজ (ফরমা সবুজ),সুমন (পিচ্চি),মতি মিয়ার ছেলে,ইসমাইলের ছেলে বিপ্লব,বেবীর ছেলে মাহী মিন,পাকনা লিটন,বদনের ভাগিনা সুজন অন্যতম।

রাসেলের নিউ সি ব্লকের নিজ ৪ তলা বাসা সিসি ক্যামেরার আওতায় এনে খুচরা ইয়াবা বিক্রিসহ গোটা মিরপুরে পাইকারী ইয়াবা সর্বরাহে এরাই মুখ্য ভূমিকা পালন করে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছে।

তাছাড়া,দারুসসালাম থানা এলাকার চিহ্নিত ও কুখ্যাত নামধারী সোর্স জাকির, সোলেমান, গোলারটেকের জাহাঙ্গীর, বর্ধনবাড়ীর ফয়সাল ও জসিম (ল্যাড়া জসিম) ফেন্সিডিল ও ইয়াবার রমরমা কারবার চালিয়ে আসছে। পালপাড়া এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ একাধিক মামলার আসামী জনি,জহুরাবাদের নবী, ছোট দিয়াবাড়ির নাসির, নয়ন, কাজল, পিয়াস (কালা গরু), বাবুর্চী বাড়ির টিটু, (ফর্মা টিটু), অলি, ওহাব, শিপলু, সামচু ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রিতে শীর্ষে রয়েছে।

দিয়াবাড়ির বিল্লাল,শফিক ও তার স্ত্রী, আরমান ও সুমন কথিত সোর্স জাকিরের নিয়ন্ত্রনে চালাচ্ছে ইয়াবা, গাঁজা, ইরোইনের রমরমা বানিজ্য। শাহ্ আলী থানা এলাকার রাব্বি, শাকিল (ছ্যাঙ্গা শাকিল), জয়নাল (ফিটিং জয়নাল), মিনু, দাত ভাঙ্গা রুবেল, লুঙ্গী জামাল, চিড়িয়া খানা রোডের সামাদ, গুদারাঘাটের বাবু ও কিংশুকের গেইটে পারুলির চিহ্নিত মাদক স্পটে দেদারসে মাদক বেচাকেনা করছে শাহ আলম।

এইচ ব্লকের অপর চিহ্নিত নয়ন তারার মাদকের স্পটে জুয়েল, মামুন ও ইকবাল সেলসম্যান হিসেবে ধুমচে বিক্রি করছে ইয়াবা।ডি ব্লকের ৩ নম্বর রোডে হাতেমের ছেলে ছাদ্দাম, হাতকাটা মামুন, ভাঙ্গারী কাকা ভাঙ্গারী ব্যবসার আড়ালে আশপাশের এলাকায় পাইকারী ইয়াবা সর্বরাহ করে আসছে।

এবিষয়ে অভিযুক্ত মাদক সম্রাট কাউন্টার রাসেলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করে তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমি গাজিপুরে আছি। এখন কথা বলা সম্ভব নয়। তবে আমার পেছনে শত্রু লেগেছে। জানিনা আমি তাদের কি ক্ষতি করেছি। বলেই কলটির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন রাসেল।

এপ্রসংগে নিউ-সি ব্লকের স্থানীয় বাসিন্দা,৯৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের ৫ নম্বর ইউনিট সভাপতি ও শাহ্ আলী থানা বিট পুলিশিং কমিটির অন্যতম সদস্য সোবহান মিয়া জানান,মাদক ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে এলাকাবাসী চরম অসহায় হয়ে পড়েছে।

মাদকের সহজলভ্যতায় এলাকার স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরাও ঝুকে পড়ছে মাদকের দিকে। তাছাড়া স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরাসহ এলাকার বিভিন্ন গার্মেন্টসে কর্মরত নারীদের আসা যাওয়ার পথে ইফটিজিং সহ নানা হয়রানীর শিকার হতে হয় মাদকসেবীদের হাতে। চুরি, ছিনতাই আনুপাতিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

আমরা স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করে বীনিত অনুরোধ করছি,অতিসত্বর এসব চিহ্নিত মাদক কারবারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে এলাকাবাসীকে উদ্ধুদ্ধ সমস্যা থেকে পরিত্রানের ব্যবস্থা করুন।

বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে শাহ্ আলী থানার অফিসার ইনচার্জ সালাউদ্দিন মিয়া বলেন,কিছু ব্যাক্তিকে মাদক ব্যবসায়ী উল্লেখ করে এলাকাবাসীর স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ পত্র আমি হাতে পেয়েছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ শুরু হয়েছে। পুলিশের অনুসন্ধানে মাদক ব্যবসায়ী প্রমাণিত হলে অচিরেই অভিযান পরিচালনা করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযোগ্য আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



আপনার মতামত লিখুন

আপনার ‘ই-মেইল’ ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না, কিন্তু স্টার চিহিৃত ঘরগুলো পূরণ করতেই হবেতেই হবে *

*